মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো এবং বেতন বেশি

উচ্চ বেতনের জন্য মানুষ দেশ ছেড়ে বিদেশে যাচ্ছে। বর্তমানে অনেক তরুণ ক্যারিয়ার হিসেবে বিদেশ বেছে নেয়। দেশ অনুযায়ী বিদেশের ভিসার দাম অনেক। সাধারণ ইউরোপের যেকোনো দেশে যেতে ১৫ লাখের উপরে টাকা লাগে। আমেরিকার যেতে প্রায় ১৫ লাখ টাকা লাগে। সবার পক্ষে লাখ লাখ টাকা দিয়ে ভিসা বান সম্বভ হয় না। যার কারণে মধ্যে মানেত দেশে যেতে যায়। এজন্য আপনারা মালয়েশিয়া আসতে পারেন। আসার পূর্বে মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো তা জানতে হবে।

তাহলে মালয়েশিয়া থেকে ভালোমানের চাকরি করতে পারবেন। এই দেশে আসতে ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা লাগবে। ভিসার ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে এখানে অনেক ধরনের কাজ আছে। কিছু কাজের জন্য শিক্ষাগত যুগটা লাগবে। তবে এমন কিছু কাজ আছে যেখানে শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়াও চাকরি পাওয়া যাবে। যেমন ড্রাইভিং, ক্লিনারের কাজ, রেস্টুরেন্ট ও হোটেলের কাজ ইত্যাদি। এই সকল কাজের মান ও বেতন ভালোই।

মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো

মালয়েশিয়ার প্রায় সব ভিসা ভালো। শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে এখানকার বড় বড় অফিস, কোম্পানি বা চাকরির প্রতিষ্ঠানে জব করতে পারবেন। যাদের বেতনের লাখেরও উপর। তবে যাদের তেমন শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই, তারা সাধারণ মানের কাজ পেতে পারবেন। এদের মধ্যে এখানে ড্রাইভিং এর কাজ, পোশাক কারখানার কাজ, ক্লিনারের কাজ এবং হোটেল ও রেস্টুরেন্ট এর কাজ অনেক ভালো। এ সব কাজে তেমন পরিসরম নেই। এজন্য প্রচুর অভিজ্ঞতা থাকা দরকার। যদি আপনার বাজেট কম থাকে এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকে, তাহলে এই সকল ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। এই সকল কাজের বেতন ৫০ হাজারের উপরে।

ক্লিনার ভিসা

বর্তমানে ক্লিনারের কাজের বেশ চাহিদা আছে। এই কাজে তেমন পরিশ্রম নেই। সাথে ভালোমানের বেতন পাওয়া যায়। কোম্পানির সাথে যুক্ত হয়েও ক্লিনারের কাজ করতে পারবেন। এজন্য মালয়েশিয়াতে অনেক গুলো ক্লিনার কোম্পানি আছে। কাজের জন্য পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকলে খুব সহজে কাজ খুঁজে পাওয়া যাবে। কাজ না জানা থাকলে, কোনো কাজ পাবেন না। তাই বিদেশ আসার পূর্বে যেকোনো একটি কাজ শিখে আসবেন। চাইলে আপনারা ক্লিনারের কাজে মালয়েশিয়া আসতে পারেন। এই ভিসার মান অনেক ভালো।

ড্রাইভিং ভিসা

মালয়েশিয়াতে ড্রাইভিং কোম্পানি আছে। কাজের ড্রাইভিং এর প্রতি অভিজ্ঞতা থাকলে কোম্পানির সাথে যুক্ত হয়েছে ড্রাইভিং এর কাজ করতে পারবেন। বাক্তিগত ভাবে গাড়ি ভাড়ার মাধ্যমেও চালাতে পারবেন। এছাড়া কোম্পানির বিভিন্ন কাজের জন্য ড্রাইভিং এর চাকরি পাওয়া যাবে। ড্রাইভিং ভিসার জন্য পূর্বের অভিজ্ঞতা, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও বিভিন্ন ডকুমেন্ট লাগবে। মালয়েশিয়াতে ড্রাইভিং ভিসার নাম ভালো আছে। কাজেই এই কাজের জন্য এখানে আসতে পারেন।

রেস্টুরেন্ট এর কাজ

সবচেয়ে ভালো হয় রেস্টুরেন্ট এ কাজ পেলে। রেস্টুরেন্ট এ কয়েক পদের কাজ রয়েছে। ওয়েটার, ক্লিনার, ফুড ডেলিবারি ম্যান ও রাঁধুনি বা শেফ। এখানে শেফ এর বেতন অনেক ভালো। এজন্য রান্নার কাজে পারদর্শী হতে হবে। হোটেলের ওয়েটার দের বেতনও অনেক ভালো। কাজের বেতনের পাশাপাশি তারা প্রতিদিন কাস্টমার থেকে টিপস বা বোনাস পায়। তাহলে আপনারা রেস্টুরেন্ট ভিসায় মালয়েশিয়া আসতে পারেন। এই কাজের মান অনেক ভালো।

হোটেল ভিসা

এখানে অনেক ধরনের হোটেল আছে। তাদের উপর হোটেলে চাকরির বেতন নির্ভর করে। রেস্টুরেন্ট এর মতো হোটেলেও বিভিন্ন পদে চাকরি পাওয়া যায়। হোটেল ও রেস্টুরেন্ট এর চাকরি প্রায় সেম। তাই এখানেও ভালো বেতন পাওয়া যাবে। মালয়েশিয়াতে আসার পূর্বে হোটেলের কাজ সম্পর্কে ধারনা নিয়ে আসতে হবে।

ফ্যাক্টরি ভিসা

এখানে অনেক ধরনের ফ্যাক্টরি আছে। এই সকল ফ্যাক্টরিতে সাধারণত শ্রমিক ও লেভার হিসেবে কাজ পাওয়া যাবে। ভালো পদের চাকরি পেতে শিক্ষাগত যোগ্যতা লাগবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকে বোর্ড পদে জব করতে পারবেন। এই ভিসা পেতে অবশ্যই কাজের অভিজ্ঞতা থাকা লাগবে। নুন্যতম কাজের যোগ্যতা জানা থাকলে ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া আসতে পারেন। এই ভিসার কাজের মান অনেক ভালো।

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

সাধারণত ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সরকারি কাজের জন্য পাওয়া যায়। যেহেতু এটি সরকারি ভাবে কাজের সুযোগ থাকে। তাই এই ভিসার খরচ অনেক কম হবে। সাথে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা নুন্যতম বেতন পাওয়া যাবে। কাজের ধরনের উপর বেতন কম-বেশি হবে।  ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে বোয়েসেলের সাথে যোগাযোহ করতে পারবেন।

শেষ কথা

মালয়েশিয়ার প্রায় সব ভিসা ভালো। কাজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা না থাকলে কোনো কাজের সফলতা পাবেন না। তাই এখাবে কাজের জন্য আসতে হলে অবশ্যই কাজ শিখে আসবেন। তবে এখানে উল্লেখিত ভিসায় আসলে ভালো বেতনের পাশাপাশি সহজে কাজ করতে পারবেন। আশা করছি মালয়েশিয়া কোন ভিসা ভালো এবং বেতন বেশি তা জানতে পেরেছেন।

আরও দেখুনঃ

মালয়েশিয়া ভিসার দাম কত টাকা ২০২৪

মালয়েশিয়া ভিসা কবে খুলবে আজকের খবর ২০২৪

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top